২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং, ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলহজ্জ, ১৪৩৯ হিজরী

নামাজে সেজদায় গিয়ে কান্নাকাটি করা যায় কী !!

মার্চ ২২, ২০১৮, সময় ৩:৩৮ অপরাহ্ণ

ইসলাম নিয়ে প্রশ্নোত্তরমূলক বিশেষ অনুষ্ঠান ‘শরিফ মেটাল প্রশ্ন করুন।’ এ অনুষ্ঠানে কোরআন ও হাদিসের আলোকে দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়। এবারের পর্বে উত্তর দিয়েছেন বায়তুল মোকাররমের সম্মানিত সিনিয়র পেশ ইমাম এবং ভারপ্রাপ্ত খতিব হজরত মাওলানা মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী।

প্রশ্নঃ বড় খতম, ছোট খতম, কুলখানি, চল্লিশা, তিনদিন এগুলো ইসলামে জায়েজ কী?
উত্তরঃ ইসালে সওয়াবের নিয়তে যেকোন কাজ করা যায়।

কিন্তু নির্ধারিত সময় নির্ধারণ করে কাজ করা বেদআত। যেমন কারো বাবা মারা গেলে আপনি যেকোন দিনই গরিব মিসকিন খাওয়াতে পারেন, যেকোন বারই খাওয়াতে পারেন। কিন্তু এটার জন্য দিন নির্ধারণ করলে সেটা বেদআত। কিন্তু এসব উদ্দেশ্যে গরিব খাওয়ানো, মিসকিন খাওয়ানো ইসলামে জায়েজ।

প্রশ্নঃ নামাজ অবস্থায় সেজদায় গিয়ে আল্লাহর কাছে মনে মনে নিজের কোনো ইচ্ছার কথা ফরিয়াদ করা যাবে কী?
উত্তরঃ নামাজের মধ্যে সেজদায় গিয়ে নির্ধারিত দোয়া পড়া মুস্তাহাব। দোয়া করতে গিয়ে সেজদায় গিয়ে কান্নাকাটি করলে তা আল্লাহর কাছে খুবই প্রিয়। যেমন রাসুলে পাক (সা.) বদরের যুদ্ধের সময় দোয়া করতে গিয়ে সেজদায় চলে গিয়েছিলেন। তবে নামাজের মধ্যে না, নামাজের বাইরে দোয়া করতে করতে সেজদায় গিয়ে চাওয়া যেতে পারে। নামাজ শেষ করতে হবে নির্ধারিত নিয়মেই।